টুপামারী পুকুর – কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নে অবস্থিত জেলার একমাত্র পিকনিক স্পট টুপামারী পুকুর(Tupamari Pukur)। এটি শুধুমাত্র উলিপুর উপজেলা-ই নয়, ৯টি উপজেলার মধ্যে জেলায় সর্ববৃহৎ একটি পিকনিক স্পট। কুড়িগ্রাম জেলা থেকে মাত্র ১০ কিঃ মিঃ ও উলিপুর উপজেলা থেকে মাত্র ১০ কিঃ মিঃ দূরে কেসি রোডের পূর্ব পার্শ্বে মনোরম পরিবেশে অবস্থিত। এ স্পটের গোড়াতেই যিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে এটিকে পুকুরে পরিণত করেছে সে বর্তমানে গুরুত্ব অসুস্থ্য অবস্থায় দিনাতিপাত করছে। তার নাম মোঃ গেলাপ উদ্দিন ওরফে গেলাপ চেয়ারম্যান। ১৯৮০ সালে জন্ম নেয় টুপামারী পুকুর। ১৯৮১ সালে এর খনন কাজ সমাপ্ত করে শুরু করে ২৫ একর জমির উপর একটি বিশাল পুকুরে মাছ ও কচ্চপ চাষ সহ বিভিন্ন প্রজাতির চারা গাছের চাষ। ধীরে ধীরে পুকুর পাড়ে গড়ে ওঠে একটি আধুনিক পিকনিক স্পট। উক্ত পিকনিক স্পটে বিভিন্ন জেলা থেকে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিদিন এখানে পিকনিকসহ এখানকার সৌন্দর্য উপভোগ করে। সেই সাথে যোগ দিয়েছে বিভিন্ন এনজিও কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।
উলিপুর উপজেলা বিএডিবি’র কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও আর্থিক সহযোগিতা গড়ে উঠে উক্ত টুপামারী পুকুর। বিএডিবি’র অফিস সহকারী মোঃ জাহিদুল হক জানান, আমরা প্রতি ৬ মাস পর পর পুকুরে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করে থাকি। উক্ত পুকুর থেকে গড়ে প্রতি বছর ২ লক্ষ ৮৫ হাজার টাকার মাছ ও ৭৬ হাজার ৮’শ টাকার কচ্চপ বিক্রয় করে থাকি এবং উক্ত পুকুরের গড়ে বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ গাছের বিভিন্ন ফল থেকে বছরে ৪৩ হাজার টাকা আয় করে থাকি। তিনি আরও জানান, উক্ত পিকনিক স্পট সংস্কারের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে ইতিমধ্যে অনেকবার আর্থিক সহযোগিতা চেয়ে আবেদন করা হলেও এখন পর্যন্ত সরকারী ভাবে কোন সহযোগিতা পাওয়া যায়। এবছরে মাননীয় পর্যটন মন্ত্রী’র পক্ষ থেকে একটি তদন্ত টিম আসার কথা রয়েছে। আমরা আশা করছি এবারে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় পক্ষ থেকে আর্থিক সহযোগিতা পাওয়া যাবে। তিনি জানান, আমাদের উক্ত পিকনিক স্পটে মোট ৫জন কর্মচারী কর্মরত আছে।
বনভোজনে আসা দর্শনার্থী লানজু আহমেদ জানান, উক্ত পিকনিক স্পটের সংস্কার করা আশু প্রয়োজন। উক্ত স্পট সংস্কার করলে দর্শনার্থীর সংখ্যা দিনে দিনে আরও বৃদ্ধি পাবে।

 

অবস্থানঃ

কুড়িগ্রাম জেলা থেকে মাত্র ১০ কিঃ মিঃ ও উলিপুর উপজেলা থেকে মাত্র ১০ কিঃ মিঃ দূরে কেসি রোডের পূর্ব পার্শ্বে মনোরম পরিবেশে অবস্থিত।

তথ্য সংগ্রহ ও উপস্থাপনায়: সাফায়েত,
সর্বশেষ আপডেট হয়েছে: ফেব্রুয়ারী 21, 2018

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.